Main Menu

পাবনায় সংযোগ সড়কহীন ব্রিজে জনদুর্ভোগ

রনি ইমরান ঃ পাবনা সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নে চরআশুতোষপুর পদ্মার ক্যানেলে ১০ বছর পূর্বে দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে ব্রিজ নির্মাণ হলেও এখন পর্যন্ত সংযোগ সড়ক করা হয়নি। সংযোগ সড়কের অভাবে ব্রিজটি চলাচলের উপযোগি না হওয়ায় চরাঞ্চলের ১০ গ্রামের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন অনেক ঘুরাপথে নানা দুর্ভোগের মধ্যে যাতায়াতে বাধ্য হচ্ছে।
জানা গেছে, চরআশুতোষপুর পদ্মার ক্যানেলে ২০০৬ সালে এলজিইডি’র উদ্দ্যোগে ১’শ মিটারের এ ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়। এ জন্য ব্যয় হয় দেড় কোটি টাকা। ঠিকাদার ব্রিজটি নির্মাণের পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সংযোগ সড়ক না করায় এলাকার জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে। ব্রিজের এক প্রান্তের চরাঞ্চলের আশুতোষপুর, দ্বীপচর, কোষাখালি, রামচন্দ্রপুর, সদিরাজপুর, চরসদিরাজপুর, রাধাকান্তপুরসহ ১০টি গ্রামের অধিবাসিরা ৪-৫ কিলোমিটার ঘুরাপথে শহরে যাতায়াত করছে। সবচেয়ে বড় দুর্ভোগে পরেছে স্কুলগামী ছাত্র-ছাত্রীরা। ব্রিজের ওপারে অবস্থিত বলরামপুর হাই স্কুল, বলরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদরাসায় প্রতিদিন কয়েক কিলোমিটার ঘুরে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এ সব ছাত্র-ছাত্রীদের বৃষ্টি মৌসুমে কাদা রাস্তা ভেঙ্গে যাতায়াত করতে হচ্ছে। ব্রিজের অপর প্রান্তে কমিউনিটি হাসপাতাল হওয়ায় রোগীদের অনেক বিড়ম্বনার মধ্যে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এছাড়াও চরাঞ্চলের উৎপাদিত কৃষিপণ্য ঘুরাপথে শহরে বিক্রি করতে আসায় কৃষকদের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাচ্ছে বলে কৃষকরা জানিয়েছে। ব্রিজটির র‌্যালিং ইতোমধ্যে দুর্বৃত্তরা কেটে নিয়ে গেছে। চরআশুতোষপুর গ্রামের বাসিন্দা দেওয়ান আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন, সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করায় এলাকার মানুষদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ হাট বাজারে অনেক ঘুরাপথে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এ ব্যাপারে দোগাছি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলী আহসান জানিয়েছেন, সংযোগ সড়কের অভাবে ব্রিজটি চালু না হওয়ায় জনদুর্ভোগের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সংসদ সদস্যকে জানানো হয়েছে। তিনি অবিলম্বে ব্রিজটির সংযোগ সড়ক নির্মাণে এলজিইডি’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।