২১ ফেব্রুয়ারিতে বনভোজন: আটঘরিয়ার ইউএনও বদলী, ওসি ক্লোজ : টক অব দা পাবনা

স্টাফ রিপোর্টার
আটঘরিয়ায় মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কর্মসূচী বাদ দিয়ে জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীরকে নিয়ে বনভোজনে ইউএনও, ফেসবুকে সমালোচনা ঝড় শিরোনামে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে টক অব দা পাবনায় পরিণত হয়। এ ঘটনায় সোমবার ইউএনও মো: সাইদুজ্জামানকে ওএসডি করা হয়েছে। একই অপরাধে মঙ্গলবার আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম ফারুক হোসেনকে পাবনা পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। তবে ঈশ্বরদীর ইউএনও শাকিল মাহমুদ ঐ বনভোজনে অংশগ্রহণ করলেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
এদিকে ইউএনও মো: সাইদুজ্জামান মিথ্যা ফিরিস্থি দিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় পত্র পাঠিয়েছেন। ওই পত্রে বলা হয়েছে, আটঘরিয়া উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক, শিক্ষক, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দকে নিয়ে পাকশীতে দুপুরের খাবারের আয়োজন করা হয়। প্রকৃতপক্ষে ওই বনভোজনে জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর ও উপজেলা চেয়ারম্যান মাও: জহুরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাইদুজ্জামান, আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম ফারক হোসেন, আটঘরিয়া মাহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মো: খলিলুর রহমান, উপজেলা একাডেমীক সুপার ভাইজার শিপ্রা রানী মন্ডলসহ উপজেলার বেশ কিছু কর্মকর্তা অংশ নেয়। সেখানে কোন মুক্তিযোদ্ধা, সরকার দলীয় কোন নেতা ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন না কিন্তু পত্রিকায় পাঠানো পত্রে ইউএনও মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন রাজনৈকি নেতা ও সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন বলে পত্রে উলে¬খ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে আটঘরিয়া উপজেলা জনৈক বীরমুক্তিযোদ্ধা বলেন, মহান শহীন দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবসে সরকারী কর্মসূচী পালন না করে সরকারী খরচে জামায়াত নেতাকে নিয়ে বনভোজন করায় আটঘরিয়ার ইউএনওকে ওএসডি এবং থানার ওসি কে ক্লোজ করা হয়েছে, এতে আমরা খুশি। তবে এই বনভোজনে বেশকিছু কর্মকর্তাও ছিলেন, তাদেরকেও শাস্তির দাবী জানান এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।
আটঘরিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জহুরুল হক বলেন, জামায়াত নেতার সাথে শহীন দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবসে বনভোজন করায় ইউএনও এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফারুক আহম্মেদকে ক্লোজ করা হয়েছে এতে আমরা খুশি। তবে এই দিনে জামায়াত নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান মাও: জহুরুল ইসলামেরও শাস্তি পাওয়া উচিত।
আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গফুর মিয়া বলেন, ইউএনও’র পক্ষে কোন সুপারিশ করার প্রশ্নই ওঠে না।
এ ব্যাপারে পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির বলেন, আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম ফারুক আহম্মেদকে বিশেষ কারণে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে।
পাবনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (স্বার্বিক) মাকসুদা বেগম সিদ্দিকা বলেন, আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: সাইদুজ্জামানকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বদলী করা হয়েছে। তবে কি কারণে তাকে বদলী করা হয়েছে তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।
উলে¬খ্য, মহান ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবসে পাবনার আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ওসি এবং উপজেলা বেশ কিছু কর্মকর্তাদের নিয়ে জেলা জামায়ের নায়েবে আমীর মাও: জহুরুল ইসলামের সাথে বনভজনে ব্যস্ত সময় পার করেন। এ সংক্রান্ত ছবি নিয়ে ঝড় উঠে সামাজিত যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। এ সংক্রান্ত সংবাদ গত শনিবার ও রোববার বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author