ভারতের জেল থেকে চার বছর পর চাটমোহরে বাবা মায়ের কাছে ফিরল শিশু ইনামুল

 চাটমোহর প্রতিনিধি : খেলার ছলে হারিয়ে গিয়ে ট্রেনে উঠে অজানার পথের পথিক হয় শিশু ইনামুল হক (১০)। ট্রেন থেকে নেমে হয়তো দালালের খপ্পরে পড়ে ভারতে পাচার হয়ে যায় সে। ভারতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে জেল খানায় ঠাই হয়। সেখানে দির্ঘ্য চার বছর তিন মাস জেল খেটে দুই দেশের সীমান্ত কর্তৃপক্ষের সহযোগীতায় ও চাটমোহর উপজেলার ফৈলজানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হানেফ উদ্দিনের উদ্যোগে শুক্রবার দুপুরে শিশু ইনামুল তার বাবা মার কাছে ফিরিয়ে আনা হয়।
শিশু ইনামুল হক উপজেলার ফৈলজানা ইউনিয়নের কদমতলী গ্রামের কৃষক সিহাব উদ্দিনের ছেলে। গতকাল শুক্রবার যখন শিশু ইনামুল কে তার বাবা মায়ের নিকট হস্থান্তর করা হচ্ছিল তখন তার বাবা মা সহ স্থানীয়রা আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। আদরের সন্তানকে বুকে নিয়ে মা অঝোড় ধাঁরায় কান্না করছিলেন। সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।
ফৈলজানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হানিফ উদ্দিন জানান, আমাদের ফৈলজানা ইউনিয়নের কদমতলী গ্রাম থেকে চার বছর আগে সিহাব আলির ছেলে শিশু ইনামুল হারিয়ে যায়। এতো দিন পার হয়ে গেলেও কোন জন প্রতিনিধি বা তেমন কেউই ছেলেটার কোন খোঁজ খবর করেনি। সর্বশেষ আমি কিছু দিন আগে জানতে পারলাম ছেলেটি ভারতের জেল খানায় বন্দি আছে ঠিক তখন থেকেই আমি ছেলেটিকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম। ছেলেটির মা প্রায়ই আমার কাছে এসে কান্নাকাটি করতো তার ছেলেকে ভারতের জেল থেকে মুক্ত করে আনতে।
তিনি আরো জানান, গত বৃহস্পতিবার যখন জানতে পারলাম ছেলেটিকে ভারত থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর থানায় হস্থান্তর করা হবে তখন আমাদের পরিষদের সদস্য সবুজ আলিকে সেখানে পাঠিয়ে দিয়ে শুক্রবার দুপুরে নিয়ে আসি আমাদের এলাকায়। অবশেষে শিশু ইনামুলকে তার মা বাবার কাছে ফিরিয়ে দিতে পেরে আমারও খুব ভাল লাগছে।
শিশু ইনামুল কে তার বাবা মায়ের কাছে হস্তান্তর করার মূহুর্তে সেখানে উপস্থিত ছিলেন, পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল হামিদ মাষ্টার, জেলা পরিষদের সদস্য সাইদুল ইসলাম পলাশ, ফৈলজানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হানিফ উদ্দিন, ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ, সবুজ আলি, আলতাব হোসেন, ৪নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারন সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, মফিজ উদ্দিন মাষ্টার, জামাল উদ্দিন সহ এলাকার উৎসুক বিপুল সংখ্যক সাধারন মানুষ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author