প্রধান সূচি

চাটমোহরে মাংস প্রক্রিয়াজাত করণ কাঠের খাইটে’র কদর বাড়ছে

ঈদ-উল আযহায় কোরবানী করা পশুর মাংস প্রক্রিয়াজাত করার অন্যতম অনুষঙ্গ কাঠের খাইটে। ঈদ অত্যাসন্ন হওয়ায় তাই কাঠের খাইটে তৈরী-বিক্রিতে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন পাবনা চাটমোহরের মৌসুমী খাইটে ব্যবসায়ীরা। সারা বছর টুক টাক বিক্রি হলেও ঈদ-উল আযহায় খাইটের কদর বাড়ে সব চেয়ে বেশি। মাংসের পাশাপাশি গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়াসহ অন্যান্য পশুর হাঁড় কাটার জন্য কাঠের খাইটে অত্যাবশ্যক। তাই পৌর সদরসহ চাটমোহরের অন্যান্য এলাকার কাঠ ব্যবসায়ী, মিস্ত্রীরা খাইটে তৈরী করে রাস্তার পাশে দোকানের সামনে রেখে দিচ্ছেন। সেখান থেকে ক্রেতারা তাদের পছন্দ মাফিক খাইটে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। পৌর সদরের আফ্রাতপাড়া,নতুন বাজার, জার্দিসআরও পড়ুন

আটঘরিয়া হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান

আটঘরিয়া (পাবনা) প্রতিনিধি পাবনা-৪ আসনের (আটঘরিয়া-ঈশ্বরদী) সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ নুরুজ্জামান বিশ্বাস এমপি এর ব্যক্তিগত উদ্যোগে আটঘরিয়া ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করা হয়েছে। গতকাল রোববার সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ নুরুজ্জামান বিশ্বাস এমপি ৫০ শয্যা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. মো. রফিকুল হাসানের কাছে ৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার হস্তান্তর করেন। এ সময় আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. ফুয়ারা খাতুন, আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা ও এমপি পুত্র মো. তৌহিদুজ্জামান দোলন বিশ্বাস, আটঘরিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণআরও পড়ুন

সাঁথিয়ায় কামার পল্লীর ব্যস্ততা

আবু ইসহাক,সাঁথিয়াঃ ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার কামার পল্লীর শ্রমিকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। করোনা ভাইরাসের কারনে লকডাউনে যানবহন বন্ধ থাকায় দুর দুরান্তের ব্যপারী না আসায় বিক্রি কমে যাওয়ায় দুশচিন্তায় রয়েছেন তারা। উপজেলার সব এলাকাতেই কম বেশি কামার শ্রমিক রয়েছে। এর মধ্যে আত্রাইশুকা, বহলবাড়িয়া, সাঁথিয়া বাজার, বোয়াইলমারী ও কাশিনাথপুরে গড়ে উঠেছে কামার পল্ল¬ী। কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে সেখানে লোহা আর হাতুড়ির শব্দে এখন আকাশ বাতাস মুখরিত। এ পেশার মানুষ সারা বছর কম বেশি লোহার কাজ করলেও ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে বৃদ্ধি পায় তাদের কর্মব্যস্ততা। কাক ডাকা ভোর থেকেআরও পড়ুন

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধা রইচ উদ্দিন সরকারের দাফন সম্পন্ন

পাবনার চাটমোহর উপজেলার নারিকেল পাড়া গ্রামের বাসিন্দা বীরমুক্তিযোদ্ধা চাটমোহর সরকারি অনার্স ডিগ্রী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাক্ষ মো.রইচ উদ্দিন সরকার (৮৫) রবিবার (১৮ জুলাই) সকালে নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী.৩ ছেলে,২ মেয়ে,নাতী-নাতনী সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। রবিবার বাদ আছর চাটমোহর সরকারি অনার্স ডিগ্রি কলেজ মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার নামাজে জানা শেষে মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাক্ষ রইচ উদ্দিনের দাফনের আগে চাটমোহর থানা পুলিশের একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করেন। পরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যাক্ষ রইচ উদ্দিন সরকারেআরও পড়ুন

৪ হাজার ৬ শ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিল পাবনা পৌরসভা

রফিকুল ইসলাম সুইট : পাবনায় করোনাকালীন সময়ে ৪ হাজার ৬ শ ২১ অসহায় দুস্থ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিল পাবনা পৌরসভা। শনিবার সকালে পাবনা পৌর সভা চত্ত্বরে খাদ্য সহায়তা কর্মসুচীর উদ্বোধন করেন পৌর মেয়র শরীফ উদ্দিন প্রধান। পাবনা পৌরসভা সুত্রে জানাযায়, স্বাস্থ্য বিধি মেনে পাবনা পৌরসভার আয়োজনে পৌরসভাধীন ৪ হাজার ৬ শ ২১ জন দুস্থ অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা করা হয়। প্রত্যেক কে ১০ কেজি করে চাল দেযা হয়। ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয়ের সহায়তায় এ খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়। পবিত্র ঈদ উপলক্ষে সুবিধাভোগীদের মাঝে এ খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।আরও পড়ুন

পাবনায় মায়ের হত্যাকারী পিতার বিচার দাবীতে মানববন্ধন

রফিকুল ইসলাম সুইট: পাবনায় মায়ের হত্যাকারী পিতার বিচার দাবীতে সন্তানেরা মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে হত্যাকারী পিতাসহ সৎ মা-বোনেরও বিচার দাবী করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে পাবনা প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে অসহায় সন্তানদের সাথে এলাকাবাসীও অংশ নেন। মানববন্ধনে বিসিএস পরিক্ষার্থী সন্তান মো: নাজমুল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার ডাঙ্গামাজগ্রামের বাসিন্দা পিতা মো: মাজেদ শেখ যৌতুকের জন্য মা সুর্য খাতুনকে প্রায়ই মারপিট করতেন। এরই এক পর্যায় পিতা মাজেদ দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এরপর থেকে মা সুর্য খাতুনের উপর নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায়। এনিয়ে বেশ কয়েকবার গ্রাম্য শালিশও হয়। অবশেষে গতআরও পড়ুন

ঈশ্বরদীতে মরা গরুর মাংস বিক্রির অপরাধে তিন মাসের কারাদন্ড

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ ঈশ্বরদীতে মরা গরু জবাই করে মাংস বিক্রির অপরাধে অনিক হোসেন (২৫) নামে এক কসাইকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। শনিবার (১৭ জুলাই) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পি.এম.ইমরুল কায়েস এর ভ্রাম্যমাণ আদালত এই দন্ডাদেশ দেন। শনিবার (১৭ জুলাই) দুইটার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের আজিজল তলা এলাকায় মরা গরু জবাই করে মাংস বিক্রির প্রস্তুতি চলছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ঈশ্বরদী থানার এস আই রবিউল ইসলাম ও সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে মাংস বিক্রির প্রস্তুতির সময় কসাই অনিক হোসেনকে গ্রেফতার করেন। পরে ভ্রাম্যমান আদালতে তাকে হাজির করাআরও পড়ুন

এলাকায় তোলপাড়

চাটমোহরের ছাইকোলা ডিগ্রী কলেজে গোপনে কমিটি গঠন

চাটমোহর প্রতিনিধি পাবনার চাটমোহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাইকোলা ডিগ্রী কলেজে গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষিপ্ত অভিভাবকগন ও এলাকাবাসী শনিবার (১০ জুলাই) কলেজ প্রাঙ্গনে গিয়ে অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পরে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কলেজটির বিলুপ্ত কমিটির সদস্য সোলেমান হোসেন, ছাইকোলা গ্রামের গোলজার হোসেন, সেতার হোসেনসহ এলাকাবাসী জানান, গত ৯ জুলাই ছাইকোলা ডিগ্রী কলেজের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হয়। নিয়মানুযায়ী ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার তিন মাস পূর্ব থেকে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটিআরও পড়ুন

তরুণ উদ্যোক্তা দুম্বার খামারি সোহেল

কঠোর লকডাউনে কোরবানির দুম্বা নিয়ে বিপাকে

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ দুম্বার খামার করে কোটিপতি হওয়ার স্বপ্নে বিভোর ঈশ্বরদীর তরুণ উদ্যোক্তা সোহেল হাওলাদার (৩২)। পাঁচ বছর ধরে তিনি নির্বিঘ্নে দুম্বাসহ উন্নতজাতের ছাগলের খামার পরিচালনা করছেন। এতে প্রতি বছর খরচ বাদে তিনি প্রায় ২০ লাখ টাকা উপার্জন করছেন। কোনবানির ঈদকে সামনে রেখে ৩০টি দুম্বার পাশাপাশি খামারে মূল্যবান তোতাপুরি, হরিয়ানা, পাকিস্তানী বিটল ও দেশীয় মোট ৮০টি ছাগল প্রজাতির প্রাণি মজুদ রয়েছে। কিন্তু লকডাউনে পরিবহণ বন্ধ থাকায় অতি মূল্যবান এসব কোরবানির পশু নিয়ে বেকায়দায় পড়েছেন। পৌর এলাকার কাচারিপাড়ার ইব্রাহিম হাওলাদারের বড় ছেলে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে বাবার সাথে ভারত থেকে পণ্যআরও পড়ুন

পিরহানা মাছ বিক্রি করার অভিযোগে আড়ৎদার এবং মাছ বিক্রেতাকে মোবাইলকোর্টে জরিমানা আদায় পাবনার মাসুমবাজারে

স্টাফ রিপোর্টারঃ পিরহান মাছ বিক্রি করার অভিযোগে পাবনা পৌরসভার মাসুমবাজারের আড়ৎদার এবং মাছ বিক্রেতাকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। রোববার ১১ জুলাই বেলা পৌনে ১১ টার দিকে নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবুল হাছনাত এর নেতৃত্বে মেবাইলকোর্টে আড়ৎদারকে ৫ হাজার এবং মাছ বিক্রেতা আঃ রউফ কে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং জব্দকৃত মাছ মাটিতে পুতে বিনষ্ট করা হয়। অভিযানে জেলা মৎস্য অফিস পাবনার ফিল্ড এ্যাসিস্ট্যান্ট মিজানুর রহমান এবং পুলিশ সদস্যরা অংশ নেন। প্রসঙ্গত: পিরহানা মাছ মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর এবং বাজারজাত নিষিদ্ধ।