প্রধান সূচি

নাটোরে গায়ে ময়দা-ডিম মেখে মাথায় ইট-জুতা বেঁধে উদ্ভট জন্মদিন উদযাপন

নাটোর প্রতিনিধি
কেক কেটে উৎসবমুখর পরিবেশে জন্মদিন পালন করার রেওয়াজ দীর্ঘদিনের। আর সেই জন্মদিন যদি হয় তরুণ বা কিশোর বয়সী কোন বন্ধুর,তাহলে আনন্দ উৎসবের কোন
কমতি থাকেনা। হই হুল্লোর, চিৎকার ,চেচাঁমেচি,গান-বাজনা নিয়মিত বিষয়। কিন্তু এবার বেশ কয়েক বছর ধরে শুরু হয়েছে ভিন্নধর্মী এক অদ্ভুত জন্মদিন পালন। বর্তমানে এই অদ্ভুত ট্রেন্ডটি গুরুদাসপুরের স্কুল, কলেজ পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রী এমনকি পাড়া মহল্লাতেও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে তরুন তরুণীদের মাঝে। যার জন্মদিন, তার এই বিশেষ আনন্দ উদযাপনের দিনে তাকে দুঃখ দিয়ে আনন্দ উদযাপন করে তার বন্ধুমহল অথবা তার পরিচিতজনেরা।
নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার খুবজীপুর এম.হক ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের মানবিক বিভাগের ছাত্র মো. আমিরুল ইসলামের (১৮) জন্মদিন পালন করা হয়েছে সেই ভিন্ন বা ব্যতিক্রমী কায়দায়। আমিরুল পিপলা নতুনপাড়া গ্রামের গোলাপ সরকারের ছেলে।
সোমবার ( ২৯নভেম্বর) বেলা ১২টায় প্রকাশ্যে তার বন্ধুরা মিলে খুবজীপুর মাঠে কলেজ পড়–য়া আমিরুলের শরীরে ময়দা, ডিম, ময়লা-অবর্জনা মাখিয়ে দেয়। এরপরে তার মাথার ওপর ইট,স্যান্ডেল ও জুতা রাখা হয়। এসময় আমিরুলকেও আনন্দ করতে দেখা যায়।পথচারীদের কেউ কেউ এ দৃশ্য দেখে মজাপান। কেউ কেউ ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেন।এই ব্যতিক্রমী কায়দার উৎসব ভিডিও ধারন করে সামাজিক গণমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তবে সচেতন নাগরিক ও অভিভাবক মহল বিষয়টিকে স্বাভাবিকভাবে নেননি ।
পথচারীদের মধ্যে কেউ কেউ এ দৃশ্য দেখে মজা পেলেও অনেকেই ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। সচেতন নাগরিক ও অভিভাবক মহল বিষয়টিকে সামাজিক অবক্ষয় হিসেবেই দেখছেন।
এ বিষয়ে খুবজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিছুর রহমান বলেন, জন্মদিন অবশ্যই আনন্দের একটি দিন। কিন্তু যে প্রক্রিয়ায় জন্মদিন পালন করা হয়েছে তা কখনোই কাম্য হতে পারে না। এটা অবশ্যই নিন্দনীয়।