প্রধান সূচি

যৌন উত্তেজক বড়ি খেয়ে বিকৃত সঙ্গম হাসপাতাল বেডে কাঁতরাচ্ছেন নববধূ

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি.
যৌতুকের টাকা না পেয়ে যৌন উত্তেজক বড়ি খেয়ে নববধুর (১৯) পায়ুপথে সঙ্গমের করেছে পাষন্ড স্বামী। অসহ্য ব্যাথায় নববধূ মিনতিও পাষন্ড স্বামীর মন গলাতে পারেননি। অতিরিক্ত রক্ষকরণ হওয়ায় মিনতি চিৎকার করলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। গত রবিবার (২৩ জানুয়ারী) গভীর রাতে নাটোরের গুরুদাসপুর পৌর সদরের ২নং ওয়ার্ডের পার-গুরুদাসপুর মহল্লায় ঘটনাটি ঘটে। পরে ওই গৃহবধুর পিতা মো. রাশিদুল ইসলাম বাদি হয়ে মেয়ে জামাই মুক্তার হোসেনকে আসামী করে গুরুদাসপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
বুধবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক অরিফা আফরোজ বানু জানান, ওই নববধু বিকৃত যৌনাচারের আলামত নিয়ে চিকিৎসা কেন্দ্রে আসেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে যৌন অনাচারের বর্ণনা রোগীর মুখে শুনেছি, তবে ঘটনার দুদিন পরে চিকিৎসা নিতে আসায় স্বল্প আলামত পাওয়া গেছে। তিনি হাসাপাতালে ভর্তি আছেন।
ভুক্তভোগি নববধূর পরিবার ও মামলার নথি সুত্রে জানা যায়, সাতমাস আগে পারিবারিকভাবে পার-গুরুদাসপুর মহল্লার মানিক উল্লাহর ছেলে মুক্তার হোসেনের (৪০) সাথে মিনতির বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকলোভী স্বামী মুক্তার কারনে অকারনে নববধূকে শারিরিক ও মানষিকভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন। একপর্যায়ে রবিবার গভীর রাতে মুক্তার যৌন উত্তেজক বড়ি খেয়ে স্ত্রীর যৌনাঙ্গে ও পায়ুপথে উপর্যোপরি নির্যাতন করায় অতিরিক্ত রক্ষক্ষরন হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরনের কারণে অসুস্থ্য নববধূ হাসপাতালের বেডে কাঁতরাচ্ছেন।
নির্যাতিত নববধূ জানান, বিয়ের পর থেকেই নিয়মিত যৌন উত্তেজক বড়ি খেয়ে তাঁকে বিকৃত যৌন নির্যাতন করতেন স্বামী মুক্তার হোসেন। নিষেধ করলে তিনি শারিরীকভাবে নির্যাতন করতেন। স্বামীর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেন ওই গৃহবধু।
অভিযুক্ত স্বামী মুক্তার হোসেন যৌন উত্তেজক বড়ি সেবনের কথা স্বীকার করে মুঠোফোনে জানান, তার স্ত্রী গর্ভবতি। বেশ ক’দিন বিরতির পর তার সাথে শারিরিক মিলনের কারনে রক্তক্ষরন হয়েছে বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মতিন জানান, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।