প্রধান সূচি

চাটমোহর ঐতিহাসিক বালুচর খেলার মাঠ সংস্কার

মোঃ নূরুল ইসলাম, চাটমোহর, পাবনা ঃ
চলমান জীবনে প্রতিনিয়ত কত কিছুই না আমাদেরকে আকৃষ্ট করে। টাইগার হিলের সূর্যোদয়, পাহাড়ের বুক চিরে বয়ে যাওয়া ঝরনা, কিংবা উত্তাল সমুদ্রের ঢেউ আমাদেরকে সহজেই কাছে টানে। একইভাবে আমরা খেলার মাঠের দিকেও আকৃষ্ট হই। কারণ স্বাস্থ্যই সম্পদ। সেই স্বাস্থ্যকে সঠিক রাখতে হলে খেলার মাঠ তার উপযুক্ত ক্ষেত্র। চীনের স্কুল-কলেজে, কল-কারখানায়, এমনকি সেনাবাহিনীতে খেলাধুলা অপরিহার্য। তাই শক্ত সমর্থ কর্মঠমানুষ গঠনের ক্ষেত্রে খেলার মাঠের কোনো বিকল্প নেই।

চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সৈকত ইসলামের উদ্যোগে চাটমোহর সরকারী হাইস্কুল বালুচর ঐতিহাসিক খেলার মাঠ সংস্কারের কাজ চলছে।

এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্টরা জানান, স্থানীয় ও আশপাশের স্কুলগুলোর অনেক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এ মাঠেই অনুষ্ঠিত হয়। আগে কিছু বাজে লোকের আড্ডা থাকলেও এখন তেমন একটা দেখা যায় না। একটু নিরাপদ বোধ করছেন এলাকাবাসী। বিকালে দেখা যায়, স্থানীয় শিশু-কিশোর ও তরুণদের খেলাধুলা ও পদচারণায় মাঠ প্রাঙ্গণ মুখরিত। পুরো মাঠে কয়েকটি অংশে ভাগ হয়ে খেলা করছে শিশু-কিশোর ও তরুণ খেলোয়াড়রা।

এ মাঠ থেকেই তৈরি হয়েছে অনেক কৃতী খেলোয়াড়। আবার অনেক কৃতিত্বপূর্ণ সাফল্যও রয়েছে এ মাঠের খেলোয়াড়দের। প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে এলাকার নারীরা জড়ো হয়ে রাত ৮টা পর্যন্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য মাঠের চারপাশে হাঁটতেন মাট সংস্কার হলে মাঠটি আরো বড় হবে এবং হাটতে আরো সুবিধা হবে বলে জানান মহল্লার নারীরা। এছাড়া আশপাশের লোকজন সন্ধ্যার পর এই মাঠে এসে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারবেন। বর্তমানে এ মাঠটির পরিচালনায় আছেন বিশিষ্ট ক্রীড়াবীদ আব্দুস সালাম সরকার।

এছাড়া এ এলাকার প্রবীণ খেলোয়ার অবসরপ্রাপ্ত ব্যাক ব্যাংকের ম্যানেজার পরিতোষ আচর্য্য, সহকারী অধ্যাপক লাবলু, সবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মচারী রনজু, মো. আনোয়ার হোসেন, মো. মোশারফ হোসেন এরা সকলেই খুব আন্তরিক। এলাকাবাসীর কল্যাণে এরা সব সময় কাজ করে যাচ্ছেন।

কয়েকজন ছাত্ররা জানায়, এ এলাকায় একটি মাত্র খেলার মাঠ। আশপাশে আর কোনো মাঠ না থাকায় আমরা প্রতিদিনই এখানে খেলতে আসি। মাঠটি সংস্কার হলে আমরা আরো ভালো ভাবে খেলতে পারবো।

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সমাজ সেবক ও বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ আব্দুস সালাম সরকার বলেন, বহুবছর পর সরকারী হাই স্কুলের ঐতিহাসিক বালুচর খেলার মাঠ সংস্কারের কাজ চলছে। আমার মতে খেলার মাঠের অন্যতম আকর্ষণ মাঠের পরিবেশ। মাঠের পরিবেশ প্রধানত দুরকম মাঠের ভিতরকার পরিবেশ যার মধ্যে থাকে খেলোয়ার, পরিচালক ও সাহায্যকারী। আর অন্যটি হল বাইরের পরিবেশ, যার মধ্যে দর্শকই প্রধান। তবে নিরাপত্তা রক্ষীরাও মাঠের পরিবেশে গুরু ত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়।

২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মহাতাব হোসেন বলেন, পৌরসদরের মধ্যে এ মাঠটি খুব ঐতিহ্যবাহী। এ মাঠে প্রশিক্ষণ নিয়ে ফুটবল, ক্রিকেট ও হকিতে জাতীয় পর্যায়ে খেলেছে স্থানীয় ও আশপাশের মহল্লার ছেলেরা। এটির সংস্কার ও সবুজ ঘাস লাগানোসহ একটি আধুনিক মাঠের সব সুযোগ-সুবিধা রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এছাড়া আধুনিক গ্যালারি, কফি শপ, খেলাধুলার সরঞ্জাম, ফ্রি ওয়াইফাই জোন করার উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। আর এই মাঠ এলাকাবাসীর জন্য নিরাপদ জায়গা। খারাপ অভ্যাসের কোনো লোককে এই মাঠে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। এ ব্যাপারে আমরা সবাই সচেতন থাকবো।