প্রধান সূচি

ডলার কমনোর জন্য রেস্টুরেন্ট দিইনি: প্রিয়াঙ্কা

বিয়ের পর থেকে বেশিরভাগ সময় যুক্তরাষ্ট্রে থাকছেন বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। পাশাপাশি কাজ করছেন একাধিক হলিউড সিনেমায়। তবে শুরু থেকেই নানা আলোচনা-সমালোচনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে তার যুক্তরাষ্ট্র নিবাস। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে তার রেস্তোরাঁয় অধিক দাম রাখার বিষয়টি।

জানা গেছে, তার সোনা নামের রেস্তোরাঁয় খাবারের দাম শুরু হয়েছে ১২ ডলার থেকে। সেখানে সবেচেয়ে কম দামি খাবার সিঙ্গারা। যার এক প্লেটের (৪টি) দাম ১২ ডলার বা ১ হাজার ১১০ টাকা। আর এক প্লেট ফুচকার দাম ১৪ ডলার বা ১২৯৫ টাকা! যাকে রীতিমতো ডাকাতি আখ্যা দিচ্ছেন নেটিজেনরা।

বিষয়টি নিয়ে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘ডলার কমানোর জন্য রেস্টুরেন্ট দিইনি। সবাই লাভের আশায় ব্যবসা করেন। তাছাড়া মানহীন খাবার দিয়ে তো দাম নিচ্ছি না। তাই কে কী বললো তা মাথায় নিচ্ছি না।’ এদিকে এমন সমালোচনার মাঝেই নতুন খবরে শিরোনামে এলেন প্রিয়াঙ্কা। নতুন আরও একটি ব্যবসা শুরু করলেন তিনি। এবার ‘সোনা হোম’ নামে একটি হোমওয়্যার লাইন চালু করলেন সাবেক এই বিশ্ব সুন্দরী।

গত বুধবার উদ্বোধন হয়েছে এই হোমওয়্যার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি। এতে থালা-বাটি থেকে শুরু করে ঘরের নানা সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে। তার এই ব্যবসা নিয়েও অনেকেই এরইমধ্যে সমালোচনা শুরু করেছেন। কেউ কেউ বলছেন কাজ পাচ্ছেন না বলে ব্যবসা বাড়াচ্ছেন। কেউ বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী নিবাস গড়তেই এই আয়োজন। অনেকে আবার কটূক্তি করতেও দ্বিধা করেননি। তারা বলছেন, অবশেষে হাতে থালা-বাটি! দুর্দিন এলে যা হয় আর কী!—এমন অসংখ্য সমালোচনা চলছে নেটদুনিয়ায়।

তবে বিষয়টি নিয়ে প্রিয়াঙ্কা ভিন্নমত প্রকাশ করে বলেন, ‘ভারত থেকে যুক্তরাষ্ট্রে এসে একে নিজের দ্বিতীয় বাড়ি বানিয়েছি আমি। আমার যাত্রাপথে আরও এক পরিবার হয়েছে। প্রচুর বন্ধু-বান্ধব হয়েছে। কিন্তু সবসময় আমি নিজের মধ্যে ভারতবর্ষকে ধরে রেখেছি। পাশাপাশি আমি যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় সংস্কৃতি পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছি। এটা তারই অংশ। আপনাদের সবার সঙ্গে সোনা হোম-এর পরিচয় করাতে পেরে আমি গর্বিত।