প্রধান সূচি

বর্ষায় কাপড়ে দুর্গন্ধ হলে করণীয়

বর্ষায় বৃষ্টি হবেই। বৃষ্টি যে শুধু ছাদ বা বারান্দার গাছগুলোকে ভিজিয়ে দিচ্ছে তা কিন্তু নয়, সে সঙ্গে ভিজিয়ে দিচ্ছে শুকাতে দেওয়া কাপড়গুলোকেও। এ সময়টাতে কাপড়ের যত্নে খানিকটা বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। না হলে আষাঢ়-শ্রাবণে কাপড়ে তিল পড়া, ছত্রাক পড়া এমনকি দুর্গন্ধও হতে পারে।

বর্ষার বৃষ্টি-কাদায় কাপড় ও পোশাক বেশি নোংরা হয়। রোদের অভাবে কাপড়ে শুকাতেও সমস্যা হয়। আর শুকালেও কাপড়ে এক ধরনের ভেজাভাব থেকে যায়। যার ফলে কাপড়ে সাদা সাদা দাগ পড়ে যায়, একে ছাতা পড়া বলে। জামাকাপড়ে ছাতা পড়ার দাগ যেমন দেখতে খারাপ লাগে, তেমনি বাজে গন্ধও বের হয়।

বর্ষার বৃষ্টি-কাদায় কাপড় ও পোশাক বেশি নোংরা হয়
অনেকেই ময়লা কাপড় ও পোশাক একসঙ্গে ওয়াশিং মেশিনের ভেতর বা লন্ড্রির ঝুড়িতে রেখে দেন। অনেকগুলো জমার পর একসঙ্গে ধুতে দেন। এভাবে রাখলে বর্ষাকালে কাপড়ের দুর্গন্ধ আরও বেড়ে যায়। যত কাপড় একসঙ্গে রাখা হয় তার সবই দুর্গন্ধময় হয়ে যায়। তাই ময়লা কাপড় একসঙ্গে না রেখে বরং আলাদা আলাদা করে ঝুলিয়ে রাখা ভালো।
ডিটারজেন্টের সঙ্গে ভিনেগার ও বেকিং সোডা মিশিয়ে জামাকাপড় ভিজিয়ে রেখে তার পর কাচুন। কাপড়ে ফাঙ্গাস দূর করতে ভিনেগার ও বেকিং সোডা বেশ কার্যকর। এ ছাড়াও কাপড়ে দুর্গন্ধ দূর করতেও এই উপাদানগুলো ভালো কাজ করে।
জীবাণু ও ছত্রাকের হাত থেকে পোশাককে বাঁচাতে বর্ষায় ঘামে ভেজা কাপড় কাচার আগে কিছুক্ষণ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কাপড় ধোয়ার পর জীবাণুনাশক তরলে কাপড় ধুয়ে তারপর শুকাতে দিন।

কাপড়ে সজীব ঘ্রাণ আনতে লেবু বা গোলাপের সুগন্ধযুক্ত ডিটারজেন্ট ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়
লেবুর মধ্যে থাকা অ্যাসিড কাপড়ের দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ফাঙ্গাস দূর করতে সাহায্য করে। কাপড়ে সজীব ঘ্রাণ আনতে লেবু বা গোলাপের সুগন্ধযুক্ত ডিটারজেন্ট ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।
কাপড় শুকনোর জন্য কখন রোদ উঠবে তার জন্য অপেক্ষা না করে বরং ঘরেই শুকানোর ব্যবস্থা করুন। জানালার কাছাকাছি স্থানে বা পাখার নিচে কাপড় ঝুলিয়ে বাতাসে শুকানো যায়।
ওয়ারড্রবে ন্যাফথালিন বা চক বা সিলিকনের পাউচ রাখলেও তা কাপড়ের গন্ধ দূর করতে সাহায্য করবে। ওয়ারড্রবে শুকনো কাপড় ভাঁজ করে রাখার সময় তা দুর্গন্ধমুক্ত রাখতে এসব ব্যবহার করতে পারেন।