প্রধান সূচি

নলডাঙ্গায় শিশুর জন্ম নিবন্ধন করলেই বাবা-মা পাচ্ছেন উপহার

নাটোর প্রতিনিধি
শিশু জন্ম নেওয়ার দুই-একদিনের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) জন্ম নিবন্ধন করলেই বাবা অথবা মাকে দেওয়া হচ্ছে কম্বল বা চাঁদর ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক, সাবানসহ নানা উপহার।
সঠিক সময়ে সব বাবা-মাকে সন্তানের জন্ম নিবন্ধনে উৎসাহিত করতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছেন
নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার এক নম্বর ব্রহ্মপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হাফিজুর রহমান বাবু।এরই মধ্যে তার এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন ইউনিয়নের সর্বস্তরের মানুষ। শিশুদের জন্ম নিবন্ধন করতে উৎসাহিত হচ্ছেন অভিভাবকরা।তাই সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার দুই-একদিনের মধ্যেই জন্ম নিবন্ধনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে ছুটে যাচ্ছেন বাবা-মায়েরা। এসময় জন্ম নিবন্ধন করেই তারা পাচ্ছেন একটি করে কম্বল বা চাদর ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবান, মাস্কসহ নানা সুরক্ষা উপকরণ। গতকাল সোমবার (২২ ফেব্র“য়ারি) সকালে ব্রহ্মপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.হাফিজুর রহমান বাবু এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর অনেক বাবা-মা তাদের সন্তানের জন্ম নিবন্ধনে আগ্রহী হন না।অনেকেই বিষয়টি নিয়ে গাফিলতি করেন। অথচ জন্ম নিবন্ধন একটি শিশুর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। জন্ম নিবন্ধনের মধ্য দিয়েই একটি শিশুর ভবিষ্যতের অনেক কিছু নির্ভর করে। বিষয়টি জেনেও অনেক অভিভাবক অবহেলা করে থাকেন। তাই বিষয়টি মাথায় রেখে এবং শিশুদের বাবা-মাকে তাদের সন্তানের সঠিক সময়ে সঠিকভাবে জন্ম নিবন্ধনে উৎসাহিত করতে এমন উদ্যোগ নিয়েছি। শিশুর জন্মের খবর পাওয়া মাত্রই জন্ম নিবন্ধন করার জন্য তাদের বাড়িতে খবর দেওয়া হয়। এতে সাড়া দিয়ে বাবা-মা সন্তানের জন্ম নিবন্ধন করছেন বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, গত জানুয়ারি মাস থেকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে এ কার্যক্রম শুরু করেছি। এরই ১৫ জনকে শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য উপহার দেওয়া হয়েছে। অনেককে নগদ অর্থও পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয়েছে। এ ধারা যাতে অব্যাহত থাকে, সে চেষ্টা করবো।

এ ইউনিয়নে অন্তত ৫০ জন অন্তঃসত্ত্বা মাতৃত্বকালীন ভাতা পাচ্ছেন। পুরনো ১০০ জনকে এ ভাতা দেওয়া হয়েছে। নতুন কারো সন্তান ভূমিষ্ঠ হলেই জন্ম নিবন্ধনে উৎসাহিত করা হবে। আর জন্ম নিবন্ধন করলে তাদের পুরস্কার স্বরূপ এসব উপকরণ দেওয়া হবে, যোগ করেন চেয়ারম্যান।
তিনি আরও বলেন, শুধু জন্ম নিবন্ধনই নয়। স্থানীয় সরকারের এ প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করতেও
সরকারের নানামুখী কর্ম পরিকল্পনা বাস্তবায়নে শতভাগ কাজ করছি। শতভাগ হোল্ডিং ট্যাক্স ও ভূমি উন্নয়ন কর আদায়, স্ট্যান্ডিং কমিটির মিটিং, গ্রাম আদালতকে কার্যকর করা, প্রতিটি ওয়ার্ডেওয়ার্ড সভা করা, উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণাসহ নাগরিকত্ব সনদপত্র দিতে সরকারি নির্দেশনাকে অনুসরণ করছি। ইউনিয়ন পরিষদকে কার্যকর ও শক্তিশালী করতেই স্থানীয়সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক এ ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে, এর বাইরে নয়। কিছু লোক বিষয়গুলোকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছেন এবং অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
এদিকে, ব্রহ্মপুর ইউনিয়ন পরিষদের এক নম্বর ওয়ার্ডের ভ্যানচালক মো. গোলাম মোস্তফা জানান, দু’দিনের নবজাতকের জন্ম নিবন্ধন করায় তাকে চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান বাবু একটি কম্বল ও করোনার সুরক্ষা সামগ্রী উপহার দিয়েছেন। এতে তিনি খুব খুশি। উপহার পেয়েছেন সাত নম্বর ওয়ার্ডের হলুদঘর গ্রামের ভ্যানচালক জালালও। তিনি বলেন, আমিও চারদিনের বাচ্চার জন্ম নিবন্ধন করতে ইউনিয়ন পরিষদে গিয়েছিলাম। সঠিক সময়ে নিবন্ধন করায় চেয়ারম্যান আমাকে একটি চাদর ও বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী উপহার দিয়েছেন।