প্রধান সূচি

জমি দখল ও ফসল নষ্টের অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন আ.লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যানের

পাবনা প্রতিনিধি ::
পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুরে জোরপূর্বক কৃষি জমির দখল ও প্রান্তিক চাষীদের ফসল নষ্টের অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন করেছে ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগ নেতা। গতকাল সোমবার দুপুরে পাবনা প্রেসক্লাব মিলোনায়নে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করনে হেমায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আলাউদ্দিন মালিথা ও পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল বারী বাকী। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন হেমায়েতপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল হাকিম বিশ^াস ও সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ মন্ডল।
লিখিত বক্তব্যে হেমায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যা মোঃ আলাউদ্দিন মালিথা বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে আমাদের নাম উল্লেখ করে যে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে সেটি সঠিক নয়। আমার ইউনিয়নের ভবানিপুর মৌজায় পদ্মানদী সংলগ্ন চরের জায়গা নিয়ে এই জমির উভয় পক্ষের মালিকদের মধ্যে সম্প্রতি ঝামেলা হয়েছে। এক পক্ষ অপর পক্ষের ক্ষেতের ফসল নষ্ট করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে। এই জমির ভবানীপুর মৌজায় ডি এস ৬৩৪ খতিয়ানে ৬.১৮ একর সম্পত্তির রেকডীয় মালিক হাফেজ প্রামানিক। আর বর্তমানে কথিত কৃষক পক্ষ ১৯৪৮ সালের জয়েনপুর মৌজায় ৬৩৪ ডি এস রেকডীয় সম্পত্তি পত্তন সূত্রে প্রাপ্ত হন নুর উদ্দিন গংরা। এই জমি নিয়ে বিরোধের বিষয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে শালিশী বৈঠক হয়েছে। কিন্তু কোন সমাধান দিতে পরিনি আমরা। বর্তমানে বিষটি নিয়ে উভয় পক্ষ আদালতের শরণাপন্ন হয়েছে। এই বিষয়ে পাবনা বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ আদালতের বিচারাধীন রয়েছে। সামনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন প্রতিপক্ষের লোকজন ষড়যন্ত্র করে আমার ও আমার জেলা আ.লীগের সম্মানিত নেতার নাম জড়িয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ক্ষেতের ফসল কাটার বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না। তবে আমাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের বিষয়ে তিব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। এই বিষয়ে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরা জন্য গণমাধ্য কর্মীদের অনুরোধ জানান তিনি।
ঘটনায় বিষয়ে পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল বারী বাকী বলেন, বিষটি নিছক ভুলবোঝা বুঝি হয়েছে। প্রতিপক্ষের লোকজন আমাদের নাম ব্যবহার করে আমার রাজনৈক সম্মান নষ্ট করা চেষ্টা করছে। পৈত্রিক সূত্রে হেমায়েতপুর এলাকায় আমাদের অনেক সম্পত্তি রয়েছে। তবে সকল জমির হিসাব আমরা বলতে পারবোনা। স্থানীয় কৃষকেরা দীর্ঘদিন ধরে জমি চাষাবাদ করে খাচ্ছে। কারা কিকারনে আমার নাম ব্যবহার করেছ এটি বলতে পারছিনা। তবে সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পরে আমি আপনাদের সামনে এসছি। কেউ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও ষড়যন্ত্র মূলক ভাবে এই কাজটি করিয়েছে। কৃষকরে ক্ষতি করে কোন দিন কোন কাজ করিনি কখনো করা ইচ্ছাও নাই আমার। তবে রাজনীতি করার জন্য এই অঞ্চলের মানুষ আমার কাছে আসতে পারে তবে কারো পক্ষ নিয়ে অণ্যের ক্ষতি করবো এমন মানুষ আমি না। প্রকুত ঘটনা জেনে সঠিক সংবাদ তুলে ধরার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।